খুনিয়াপালংয়ে সংস্কারবিহীন ২ কিলোমিটার রাস্তা : জনদুর্ভোগ চরমে

|| শাহ মুহাম্মাদ রুবেল ||

কক্সবাজারের রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ধোয়াপালং গ্রামের রাস্তার মাথা থেকে নয়াপাড়া পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক সংস্কারবিহীন পড়ে আছে। একটু বৃষ্টিতে গ্রামীণ জনপদের এই রাস্তাটি জল আর কাদায় একাকার হয়ে যায়। এই গ্রামের সাধারণ জনগণ, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরাসহ অন্তত ১০ সহস্রাধিক মানুষ যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। বিধ্বস্ত রাস্তাটি রহস্যজনক কারণে দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় জনমনে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, ধোয়াপালং রাস্তার মাথা থেকে পেঁচারদ্বীপ রেজুর ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ৭ কিলোমিটার রাস্তার প্রায় ৫ কিলোমিটার রাস্তা কার্পেটিং (পিচ ঢালাই) করা হয়। কিন্তু ধোয়াপালং গ্রামের রাস্তার মাথা থেকে নয়াপাড়া (মিলঘর) পর্যন্ত মাত্র ২ কিলোমিটার রাস্তা কোনো এক অজানা কারণে দীর্ঘ সময় ধরে মেরামত করা হচ্ছে না।

অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছে রাস্তাটি

স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, দীর্ঘ বিশ বছর আগে এই ইটের রাস্তাটি তৈরি করা হয়ে ছিল। কিন্তু তারপর থেকে কোনো ধরনের উল্লেখযোগ্য মেরামত চোখে পড়েনি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও সেদিকে কোনো খেয়াল রাখেনি।

তারা আরও জানায়, রাস্তার বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতে জলকাদায় ভরে যায় রাস্তাটি। দিন যত যাচ্ছে রাস্তার অবস্থা আরও নাজেহাল হয়ে পড়ছে। এই গ্রামের সাধারণ জনগণ, স্কুল-কলেজগামী ছেলেমেয়েদের যাতায়াতের একমাত্র অবলম্বন এই রাস্তাটি দীর্ঘদিন অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছে।

চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে স্থানীয়রা

স্থানীয়রা আরও জানায়, এই রাস্তা জন চলাচল ছাড়াও প্রতিদিন ছোট গাড়ির পাশাপাশি দুই শতাধিক বেশি ডামপার, পিকআপ, ট্রাকের মতো ভারী গাড়ি চলাচল করছে। যার কারণে সম্পূর্ণ রাস্তাটি খানাখন্দে পরিণত হয়েছে, এবড়োথেবড়ো হয়ে মুখ তুবড়ে পড়েছে জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি।

স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, এই রাস্তা দিয়ে শুষ্ক মৌসুমে ধূলাবালির কারণে হাঁটাচলা করা যায় না, আর বর্ষা মৌসুমে জল কাদার কারণে এই গ্রামের দশ হাজার মানুষের চলাচল দুর্বিষহ হয়ে পড়ে।

সামান্য বৃষ্টিতে জলকাদায় ভরে যায় রাস্তাটি
তারা আরও বলেন, কী বর্ষা, কী শুষ্ক মৌসুম এক কথায় বলতে গেলে এই এলাকার জনদুর্ভোগ চরম থেকে চরমতর পর্যায়ে পৌঁছেছে। তাই, স্থানীয় সরকার, জন প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করছি সংস্কারবিহীন এ দুই কিলোমিটার রাস্তাটির প্রতি একটু নজর দিন, একটু সদয় হোন।

রাস্তাটি খানাখন্দে পরিণত হয়েছে
রামু স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) অফিস সুত্রে জানা গেছে, এই রাস্তাটি মেরামতের জন্য ইতোপূর্বে তিন বার দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু কাজের চেয়ে প্রাক্কলিক ব্যয় কম হওয়ায় কোনো ঠিকাদার আর্থিক ক্ষতির শংকায় দরপত্র কিনেনি। তাই কেউ টেন্ডার ফরম জমা না দেওয়ায় কাজটি পড়ে রয়েছে।
এ রাস্তায় মানুষের চলাচল দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে
খুনিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মাবুদ বলেন, দীর্ঘদিন সংস্কারবিহীন রাস্তাটি পড়ে রয়েছে। তিনি বলেন, আগামী কিছুদিনের মধ্যে এই দুই কিলোমিটার নাজুক রাস্তা মেরামতে টেন্ডার আহ্বান করবে এলজিইডি। এতে করে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ কমে যাবে।
আপনার মন্তব্য দিন