চকরিয়া খুটাখালীতে সাদা পরিপক্ষ লবণ উৎপাদন প্রশিক্ষণ সম্পন্ন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : :

কক্সবাজারের  চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে সাদা দানাদার ও পরিপক্ষ লবণ চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে লবণ চাষী উদ্যোক্তা উন্নয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ কোর্স গত বৃহস্পতিবার সম্পন্ন হয়েছে।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয় বিসিক কক্সবাজারের আয়োজনে অনুষ্ঠিত দিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ কোর্সে সভাপতিত্ব করেন ডুলা ফুলছড়ি লবণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রনজীব বড়ুয়া।

বিসিক সম্প্রসারন কর্মকর্তা শামিম আলমের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, লবণ শিল্পের উন্নয়ন কার্যালয় বিসিক কক্সবাজারের সম্প্রসারন কর্মকর্তা আলহাজ্ব রিদুয়ানুর রশিদ।

উন্নতমানের সাদা দানাদার এবং পরিপক্ষ লবণ উৎপাদনে উদ্যোক্তা তথা চাষীদের উদ্বুদ্ধ করে বক্তব্য রাখেন সম্প্রসারন কর্মকর্তা শামিম আলম।

লবণ শিল্পের অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা করেন, বিসিক সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অনুষ্টানের প্রধান অতিথি রিদওয়ানুর রশিদ।

বিশেষ অতিথির হিসাবে লবণ শিল্পের উন্নয়নে বিসিকের ভূমিকা নিয়ে বক্তব্য রাখেন, খুটাখালী ইউনিয়ন আ’লীগ সিনিয়র সহ সভাপতি বাহাদুর হক।
চাষী উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মাষ্টার রেজাউল করিম রেজু ও ডা. শফিউল আলম শফি প্রমুখ।

এসময় ডুলা ফুলছড়ির প্রায় অর্ধ শতাধিক লবণ চাষী উদ্যোক্তা প্রশিক্ষনে অংশ নেন।
প্রশিক্ষণে বিসিক সম্প্রসারন কর্মকর্তা আলহাজ্ব রিদুয়ানুর রশিদ বলেন, দেশে লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পুর্ণতা অর্জন করা এবং বিদেশ হতে লবণ আমদানী বন্ধ করতে ৬৩ হাজার একর জমিতে ১৮ লক্ষ মে:টন পরিশোধিত লবণ উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কালো লবণ উৎপাদনে লবণ মাঠ ক্ষয়প্রাপ্ত হয়। লবণের সাথে মিশ্রিত কাদা দ্বারা মিল এলাকার নদ নদী ক্রমান্বয়ে ভরাট হয়ে যাচ্ছে। যা পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

কাজেই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিসিক উদ্ভাবিত পলিথিন পদ্ধতিতে মানসম্মত সাদা দানাদার ও পরিপক্ষ লবণ উৎপাদনের মাধ্যমে দেশের লবণের চাহিদা পুরণ করার জন্য লবণ চাষী উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে রনজীব বড়ুয়া বলেন, লবণ চাষীদেরকে ব্যবসায়ীরা নিয়ন্ত্রণ করেন। এ ক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা বেশি। ব্যবসায়ীরা যদি সহযোগীতা করেন তাহলে মানসম্মত পরিপক্ষ লবণ উৎপাদন করা সম্ভব।

লবণের ঘাটতি ও স্থানীয় বাজার দর ধরে রাখার জন্য পরিপক্ষ লবণ উৎপাদনের বিকল্প নেই বলে তিনি দাবী করেন।
প্রশিক্ষণ কোর্সে অন্যান্যদের মধ্যে ডুলাফুলছড়ি লবণ কেন্দ্রের সহকারী মো: নাছির উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মন্তব্য দিন