দেখেছি দূরে ওই সোনালি দিন : স্বাগত ২০২০

নিউজ কক্সবাজার রিপোর্ট :

বেজে উঠেছে সময়ের ঘড়ি। আবারো ডাক এসেছে চির নূতনের। পুব আকাশে ক্যালেন্ডারের শেষ দিনটি পেরিয়ে নতুন দিনের নতুন সূর্য। আহ্বান, ‘দুয়ারে দাঁড়িয়ে ছিনু/ বরণ করিয়া লহ।’ ভালো-মন্দের একটা বছর। ভাঙাগড়ার বছর। কারো প্রাপ্তির, কারো হারানোর বছর। সব প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি পেছনে ফেলে নতুন বছর ২০২০ সাল। সদ্যবিদায়ী বছরে কী হয়নি, কী হতে পারত, ব্যক্তি-রাজনীতি-রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে এই জটিল সমীকরণ তো থাকবেই। তবে অপ্রাপ্তির ঝুলি পূর্ণ করার মাঝেই লুকিয়ে রয়েছে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, প্রাচীন রোমের পৌরাণিক দেবতা জেনাসের নামানুসারে নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির নামকরণ। দেবতা জেনাসের দুটি মুখ। একটি সূর্য অপরটি চন্দ্র। সূর্য উত্তাপ বিকিরণ করে জীবন সঞ্চালন ঘটায়। চন্দ্র তার মধুর আলোয় জীবনের পরিপুষ্টি আনে। আবার জেনাসের একটি মুখ ভবিষ্যতের প্রতীক, অন্যটি অতীতের। তিনি পার্থিব মানুষের জীবনদ্বারের প্রহরী। তাই দৃষ্টি প্রসারিত করে আছেন আমাদের অতীত থেকে অনাগত ভবিষ্যতের দিকে। অতীত থেকে অনাগতের যাত্রাপথে যে চলমান প্রবাহমানতা, জেনাস তার নিয়ামক এবং নিয়ন্ত্রক। তিনি স্বস্তি, শান্তি আর কল্যাণের দেবতা। প্রাচীন রোমানরা একে ভক্তিভরে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করতেন বিভিন্ন বিবাহ অনুষ্ঠানে, ব্যবসা-বাণিজ্য শুরুর আগে ও পরে, শিশু জন্মের মুহূর্তে। ইতিহাসবিদরা জানিয়েছেন, ৪ হাজার বছর আগে প্রাচীন মেসোপটেমিয়ার ব্যাবিলিয়নরা ‘আকিতু’ নামে নববর্ষ অনুষ্ঠান পালন করে সুখী, শান্তিপূর্ণ, শুভময় ভবিষ্যতের জন্য প্রার্থনা জানাতেন দেবতার দুয়ারে। আর আবহমান কাল ধরে বিশ^ও এগিয়ে চলেছে নতুনের হাত ধরে। পুরনো জীর্ণতাকে ভুলে নতুন দিনের নতুন কাব্যে জীবনকে আরো কাব্যময় করে তুলতে। তাই ইংরেজি ক্যালেন্ডারের প্রথম দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে বিশ^বাসী মেতে উঠে নানা আয়োজনে। ব্যতিক্রম নয় বাংলাদেশও। বর্ণিল আয়োজনে স্বাগত জানিয়েছে নতুন বর্ষকে।

সদ্যবিদায়ী বছরজুড়ে নেতিবাচক আলোচনায় ছিল সুবর্ণচরের ধর্ষণ ঘটনা, নুসরাত হত্যাকাণ্ড, রিফাত হত্যাকাণ্ড, আবরার হত্যাকাণ্ড, বালিশ কেলেঙ্কারি, ডেঙ্গু, ক্রিকেটে নিষিদ্ধ সাকিব, পেঁয়াজ, লাগামহীম দ্রব্যমূল্য এবং সবশেষে বিতর্কিত রাজাকারের তালিকা ইস্যু। অন্যদিকে অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির হার বৃদ্ধি, শুদ্ধি অভিযান ও ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার, দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) বর্তমান ও সাবেক সংসদ সদস্য, রাজনীতিকদের তালিকা ও সম্পদের অনুসন্ধান, দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার মতো নজিরবিহীন ঘটনায় সবমহলে প্রশংসা কুড়িয়েছে শেখ হাসিনার সরকার।

নতুন বছর ২০২০ সাল বাংলাদেশের জন্য একটি মাইলফলক। এই বছরটি মুজিববর্ষ হিসেবে পালিত হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এ উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানমালা থাকবে সারা বছরজুড়ে। আগামী বছর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। প্রস্তুতি থাকবে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনেরও। আওয়ামী লীগ সরকারের টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতা নেয়ার প্রথম বর্ষপূর্তি ৭ জানুয়ারি। চুলচেরা বিশ্লেষণ হবে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের। প্রতিশ্রæতি বাস্তবায়নের পথে কতটুকু এগিয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া দলটি- এই মূল্যায়ণও করবেন বোদ্ধারা। দ্রুত এগিয়ে যাওয়া দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচি, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, আমার গ্রাম আমার শহর, মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন, মেট্রোরেল, পদ্মা সেতুর কাজ আরো ত্বরান্বিত হওয়ার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত থাকবে এটাই প্রত্যাশা। কবির ভাষায়, ‘এইবার তুলে দাও সকল পাল/ দুহাতে তুলে নাও কঠিন হাল/ সমুখে সুন্দর আগামীকাল, ব্যথাবিহীন/ দেখেছি দূরে ওই সোনালী দিন।’ সোনালি দিনের প্রত্যাশায় এগিয়ে যাক বাংলাদেশ। সবাইকে ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা।

আপনার মন্তব্য দিন