পুলিশ কর্মকর্তা রনজিত বড়ুয়া থানায় মসজিদ নির্মাণ করেই সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন 

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, নিউজ কক্সবাজার.কম :

বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে টেকনাফ থানায় বদলি হয়ে আসা কলকাতার সুদর্শন পুলিশ কর্মকর্তা ধীরাজ ভট্টাচার্য আর এই শতাব্দির চট্টগ্রামের ছেলে ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়া এই দুই পুলিশ কর্মকর্তাই ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিলেন।

পুলিশ ইন্সপেক্টর ( ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া টেকনাফ থানা কম্পাউন্ডে একটি জামে মসজিদ নির্মাণ করে দিয়ে সম্প্রীতির এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আর ধীরাজ ভট্টাচার্য এর জন্য আত্দবিসর্জন করেই অমর প্রেমের নিদর্শন খচিত আছে থানা কম্পাউন্ডেই মাথিনের কূপে। দর্শনীয় মসজিদ আর মাথিনের কূপ নিয়ে ইতিহাস হয়ে রইলেন এবং অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন এই দুই পুলিশ কর্মকর্তা।

চলতি ২০১৮ সালেই টেকনাফ থানা কম্পাউন্ডে শুরু করা হয় জামে মসজিদ নির্মাণ কাজ। এর প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া। তিনি বদলীর আগেই সমাপ্ত করেন মসজিদ নির্মাণ কাজ। নান্দনিক টেকনাফ মডেল থানায় নবনির্মিত জামে মসজিদ নিয়ে সম্প্রীতির এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেলেন অল্প কয়েকদিন আগে বিদায় নেওয়া  বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী পুলিশ কর্মকর্তা রনজিত কুমার বড়ুয়া। তিনি এই মহত উদ্যোগটি মাথায় নিয়ে স্থানীয়দের সহযোগীতায় শৈল্পিকতায় ঘেরা এই জামে মসজিদটির নির্মাণ কাজ শুরু করেন।

মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে মসজিদের নির্মাণ কাজ শেষ করার পর পরই টেকনাফবাসীর জন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া অন্যত্র বদলি হওয়ার খবর চলে আসে।

এরপর গত ১৯ অক্টোবর থানার পুলিশ সদস্যরা রনজিত কুমার বড়ুয়া জন্য আয়োজন করে বিশাল বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্টান।

এই বিদায় অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন- কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন। সেই দিন সন্ধ্যায় সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করা নব-নির্মিত মসজিদটি শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন।

২ নভেম্বর শুক্রবার সনাতন ধর্মাবলম্বী নবাগত (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ, (ওসি) তদন্ত এবিএমএস দোহা,(ওসি) অপারেশন শরিফ ইবনে আলমের নির্দেশক্রমে উপস্থিত মুসুল্লিরা  নবনির্মিত মসজিদে প্রথম বারের মতো জুমার নামাজ আদায় করেন। প্রথম জুমায় খুৎবার বয়ান করেন টেকনাফ হ্নীলা জমিরিয়া সিনিয়র দাখিল মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা ফেরদৌস আহমদ। ইমামতি করেন মাওলানা আক্তার হোসাইন।

জুমা পূর্ববর্তী সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখতে গিয়ে টেকনাফ মডেল থানার নবাগত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ মুসল্লিদের উদ্দেশে বলেন, আপনাদের আগামী প্রজন্মের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের কথা মনে রেখে মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের পুলিশ সদস্যদের চলমান অভিযানকে আরো বেগবান করতে সহযোগীতা করুন। আপনাদের সহযোগীতা পাশে থাকলে টেকনাফ উপজেলায় মাদকের যে বদনাম তা অচিরেই মুছে যাবে।

এদিকে টেকনাফ মডেল থানার নব-নির্মিত দৃষ্টিনন্দন জামে মসজিদ স্থাপনকারী থানার বিদায়ী ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান,২ নভেম্বর নব-নির্মিত মসজিদে প্রথম জুমার নামাজ আদায় করার মাধ্যমে মুসুল্লিরা সুন্দর ভাবে প্রতিনিয়িত নামাজ পড়তে পারবে।

তিনি আরো বলেন,আমি খুব খুশি হয়েছি কারন একটি ধর্মীয় প্রতিষ্টানে সহযোগীতা করে আমার দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এই মসজিটি নির্মাণে স্থানীয় জনগন ছাড়াও উক্ত থানায় কর্মরত সকল পুলিশ সদস্যরাও নিরলস ভাবে আমাকে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। পাশাপাশি এই মসজিদ নির্মাণ করার সময় আমাকে সার্বিক সহযোগীতা করে ছিলেন সাবেক মেম্বার আলহাজ্ব আবুল কালাম ও সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ। তাদের কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ । তারা সর্বত্র সহযোগীতার কারণে আজকে দৃষ্টিনন্দন জামে মসজিদটি সংস্কার সম্ভব হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, আমরা খুবই কম মানুষই দেখেছি নিজে অন্য ধর্মালম্বী হয়েও (বুদ্ধ ধর্মের অনুসারী) মুসলিম ধর্মাবলম্বিদের জন্য মনের মাধুরী মিশিয়ে এত সুন্দর একটি মসজিদ স্থাপন করেছেন। বুদ্ধ ধর্মের অনুসারী হয়েও সম্প্রীতির এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করে দেওয়ার জন্য ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়ার প্রতি টেকনাফবাসি কৃতজ্ঞ।

আপনার মন্তব্য দিন