রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ৩ কেজি সোনা ও নগদ তিন লাখ টাকা সহ আটক ৩

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন , নিউজ কক্সবাজার : 

কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে চোরাচালানের ৩ কেজি ২৩০ গ্রাম সোনা ও ৩ লাখ টাকা উদ্ধার করেছে পুলি।

এসময় চোরাচালানে জড়িত তিন রোহিঙ্গাকেও আটক করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( উখিয়া সার্কেল) নিহাদ আদনান তাইয়ান এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ মঙ্গলবার রাতে এ অভিযান চালায়।

জানা গেছে, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( উখিয়া সার্কেল) নিহাদ আদনান তাইয়ান এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান চালান। এসময়  চোরাচালানের ৩ কেজি ২৩০ গ্রাম সোনা ও ৩ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।

এসময় চোরাচালানে জড়িত তিন রোহিঙ্গাকেও আটক করা হয়েছে। আটককৃত তিন রোহিঙ্গা সোনা চোরাচালানী বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নিহাদ আদনান তাইয়ান।

আটক তিন রোহিঙ্গার বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আরো জানা গেছে,  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবৈধভাবে শত কোটি টাকার স্বর্ণের ব্যবসা চলে আসছিল।

উখিয়া-টেকনাফে ৩২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে। এসব রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাস করছে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা অন্তত ১১ লাখ ১৮ হাজারেরও বেশী রোহিঙ্গা। এসব রোহিঙ্গাদের ঘিরে ক্যাম্প সোনা চোরাচালানী রোহিঙ্গা চক্র জড়িত রয়েছে।

চোরাচালানকে ঘিরে রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে স্বর্নের দোকান। উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় শতাধিক স্বর্ণের দোকান রয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, স্থানীয়দের যোগসাজশে রোহিঙ্গারা এ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। গত দুই বছরে প্রায় শত কোটি টাকার স্বর্নের ব্যবসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক স্বর্ন চোরাকারবারি। স্বর্ণের দোকান ছাড়া মুদির দোকানের পেছনে স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে সেখানে । প্রতিদিন স্বর্ণের দোকানে ভিড় লেগে থাকে রোহিঙ্গাদের ।

সরকারের অনুমতিবিহীন ও প্রয়োজনীয় লাইসেন্স ছাড়াই এসব জুয়েলার্সের দোকান খোলা হয়েছে। আর প্রতিদিন উক্ত দোকান গুলোতে স্বর্ণ ক্রয় করতে এসে প্রতারিত হচ্ছে অনেকেই। এমনও অভিযোগ রয়েছে নিম্নমানের ও নকল স্বর্ণ বিক্রি করে লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

সম্প্রতি উখিয়া উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়ে স্বর্ণের দোকান গুলো সিলগালা করেন। এসময় জরিমানা আদায় করা হয়েছিল।

আপনার মন্তব্য দিন