অপ্রতিরোধ্য ইয়াবা কারবারি টেকনাফের টুনাইয়ার ছেলে গফুর

স্টাফ করেসপনডেন্ট।।

আব্দুল গফুর।বাবার নাম আব্দুল মাজেদ প্রকাশ টুনাইয়া। কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া শামলাপুর এলাকায় এক নব্য কোটিপতি ইয়াবা কারবারির নাম।
গত তিন বছর আগে দুপুরবেলা খেলে রাতের জন্য চিন্তার শেষ ছিলো না তাদেরর। এই কয়েক বছরে অনেক কিছু হয়েছে।
বর্তমানে কোটি টাকার মালিক। আনুমানিক ত্রিশ লক্ষ টাকা খরচ করে আলিশান বাড়ী নির্মাণ করছে ইয়াবা কারবারি গফুর।নিজেকে দলিল লিখক দাবী করলেও মুলত ইয়াবা কারবারি বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে।
স্থানীরা বলছেন, দলিল লিখকের তকমা লাগিয়ে এখন প্রতিষ্ঠিত ইয়াবা কারবারী গফুর। একসময়ের বিএনপির নেতা গফুর ইয়াবা ব্যবসার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের শীর্ষ তালিকাভুক্ত শাহজাহানের হাত ধরে যোগ দেয় শ্রমিক লীগে।শুরু ইয়াবা পাচার। হয়ে যায় জিরো থেকে হিরো। সেই থেকে তাকে আর পিছনে ফিরে থাকাতে হয়নি।
বিষয়টি গোয়েন্দা নজরদারীতে এনে তদন্ত করলে গফুরের ইয়াবা পাচারের কাহিনী বের হয়ে আসবে বলে এলাকার সচেতন মহল মনে করেন।
এলাকাবাসী সুত্রে আরও জানা গেছে, শামলাপুর সাগর থেকে পোনা শিকারও করতো ইয়াবা গফুর। বছর চারেক আগেও গাড়ী ভাড়া জোগাড় করে টেকনাফ যেতে কষ্ট হতো, একবেলা খেলে অন্য বেলার চিন্তায় থাকতে হত তাকে। সেই ব্যক্তি কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুরের পোনা শিকারী ও কথিত মুন্সি আবদুল গফুর অল্প দিনেই ইয়াবার ছোঁয়ায় হয়ে গেছেন কোটিপতি।চড়েন দামী গাড়ীতে। ইয়াবা কারবারি গফুর কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর পুরান পাড়ায় তার বাড়ি। অভাবের কারণে সাগর থেকে পোনা ধরে জীবিকা নির্বাহকারী গফুর এখন জমি জমা আর কোটি কোটি টাকার মালিক। তিনি ইয়াবার ছোঁয়ায় রাতারাতি ভাগ্য বদল করেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।এলাকাবাসী ও বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, পোনা ব্যবসায়ী আবদুল গফুর গত ৩/৪ বছর আগে দুপুর বেলা খেলে রাতের জন্য চিন্তার শেষ ছিলোনা।বর্তমানে কোটি টাকার মালিক তিনি। নির্মাণ করেছে আলিশান বাড়ী । এই বাড়ি নির্মাণে আনুমানিক ব্যয় করা হয়েছে ত্রিশ লক্ষ টাকা। তার হঠাৎ পরিবর্তন দেখে এলাকাবাসীও হতবাক।
এলাকাবাসী জানান, বাহারছড়া শীলখালী তার শ্বশুর বাড়ির পাশে কোটি টাকার জমি, মেরিন ড্রাইভে ও শামলাপুর পুরানপাড়ায় তার বাড়ির পাশে স্ত্রীর নামে কিনেছে আরো কোটি টাকার জমি। নিজেকে দলিল লিখক দাবী করলেও মুলত ইয়াবা কারবারি বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের শীর্ষ তালিকায় থাকা টেকনাফের জাফরের ছেলে শাহজাহান জেলে থাকতে তার ইয়াবা কারবার এবং জেল থেকে বের হয়ে সিন্ডিকেটের ইয়াবা গফুর ইয়াবার রাজত্ব কায়েম করছে।মেজর সিনহা হত্যার পর পুলিশের নিরব ভুমিকায় ইয়াবা গফুর সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে লাখ লাখ ইয়াবা পাচার করেছে বলে সুত্রে জানা গেছে।
গফুরের বাড়ী শামলাপুর সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় গুচ্ছগ্রামে হওয়ার সাগর পথে ইয়াবা পাচার করতে সুবিধা হচ্ছে বলে সচেতন মহলের ধারণা।

আপনার মন্তব্য দিন