উখিয়া জালিয়াপালং ইউপি ছাত্রলীগ সভাপতি নান্নুর পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলা : মা নিহত, আহত-১০

নিউজ কক্সবাজার রিপোর্ট :

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল আবছার নান্নুর পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এসময় হামলায় নান্নু মা নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরো অনন্ত ১০ জন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জালিয়াপালং ইউনিয়নের সোনাই ছড়ি এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটেছে।

আহত সানা উল্লাহ জানান, শুক্রবার  মাগরিবের নামাজের আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিবিরের ক্যাডার শাহীন সরওয়ার ও তার ভাই শিবির ক্যাডার সাইফুদ্দিনের নেতৃত্বে ২০/৩০ জন সন্ত্রাসী অতর্কিত সানা উল্লাহর উপর হামলা চালায় এবং তার ভাইকে ধরে নিয়ে যায় ।

শিবির ক্যাডাররা আমার ভাইকে উপর্যপুরি চূরি ধারালো কিরিচ দিয়ে ও লাটি দিয়ে আঘাত করে এবং পায়ের পিছনে রগ কেটে দেন ।

এই হামলায় তার মা নিহত হয়েছেন। তবে এলাকাবাসী ওই মহিলাকে জীবিত ভেবে হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষনা করেন।

নিহতের মরদেহ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে মর্গে রয়েছে। আহত কয়েকজনকে ইনানী ফাঁড়ির পুলিশ ধরে নিয়ে বেদম মারধর করেছে বলে আক্রান্ত পরিবারের অভিযোগ।

এলাকাবাসী ও বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, গত ৩০ মার্চ সোনাইছড়ি মাঠে ক্রিকেট খেলা নিয়ে সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি নুরুল আবছার নান্নুর সাথে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক সোনাইছড়ি গ্রামের শিবিবের একটি পরিচিত গ্রুপ নাইন স্টার গ্রুপের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়। এতে উখিয়া থানায় এজাহার দায়ের করেন উভয় পক্ষ। অজ্ঞাত কারনে সাবেক ছাত্র লীগ নেতা নান্নুর মামলাটি থানায় রেকর্ড করা হয়নি। তবে থানায় নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয় নাইন স্টার গ্রুপের মামলাটি।

এদিকে, মামলা রেকর্ড না হলেও শুত্রুবার স্থানীয় জনগন লক্ষ্য করলো একটি ভিন্ন চিত্র। মামলা করার পর উল্টো আসামীদের বাড়িতেই হামলা করলো নাইন স্টার গ্রুপের সন্ত্রাসীরা।
শুক্রবারমাগরিবের আগে সন্ত্রাসীরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি নুরুল আবছার নান্নুর বাড়িতে ধারালো রাম চা,কিরিচ ও লাঠি নিয়ে হামলা চালায়।

সাইফুদ্দিন ও শাহীন সরওয়ারের নেতৃত্বে ২০ /৩০ জনের সন্ত্রাসী দল নান্নু,নান্নুর ভাই সানা উল্লাহকে খুঁজতে থাকতে। ঘরের ভেতর গিয়ে ভাংচুর চালায় এবং মারধর করে নান্নুর বড়ভাই আহামদ শরীফ (৩০) কে ধরে নিয়ে যায়। এসময় বাধা দিতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের এলোপাতাড়ী আঘাতে গুরুতর আহত হন নান্নুর পিতা আলী হোসেন ও মা নুর নাহার।
এলাকাবাসী নান্নুর মা নুর নাহার (৫০) কে অজ্ঞান অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

পরে সন্ত্রাসীরা নান্নুর ভাই আহামদ শরীফকে বেধড়ক পিটিয়ে ইনানী পুলিশ ফাঁড়িতে সোপর্দ করে। এ ঘটনার পর দ্বিতীয় দফায় আবারো হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এক ঘন্টা পর সন্ধ্যা ৬ টার দিকে চালানো এ হামলায় আহত হয় আরো ৩ জন। এবার সন্ত্রাসীরা নান্নুর সহযোগি বলে হামলা চালায় বাবার কবর জেয়ারত করে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় সোনাইছড়ি গ্রামের মৃত বজল আহামদের ৩ সন্তানের উপর।

সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত সানা উল্লাহ আরো জানান, শিবিরের চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক পরিচিত নাইন স্টার গ্রুপের অধিকাংশ কর্মী সোনাইছড়ি এলাকার। উক্ত গ্রুপের সাইফুদ্দিন ও শাহীন সরোয়ারের নেতৃত্বে ২০/৩০ জনের গ্রুপটি আমাদের নান্নুর সহযোগি বলে চা, কিরিচ ও লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত করেছে।

আমি, আমার দু,ভাই মোহাম্মদ উল্লাহ (৩৬) ও কক্সবাজার জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী হোছাইন (৫০) কে তারা উপর্যপুরী হামলা চালিয়েছে। আমার দু,ভাইকে গুরুতর আহত অবস্থায় উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে মোহাম্মদ উল্লাহর পায়ের রগ কেটে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। হাসপাতাল সুত্রে জানা যায়, আহত মোহাম্মদ উল্লাহর অবস্থা আশংকাজনক।

এদিকে, বর্বরোচিত এই হামলার ঘটনার ব্যাপার জালিয়াপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট রাশেল বলেন, নান্নুর বসতবাড়িতে হামলার ঘটনা দুঃখজনক। পুলিশের সামনেই এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ বাধা দিলে মৃত্যু ও আহতের ঘটনা এড়ানো যেত। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাই ও দোষীদের শাস্তি দাবী করছি।

এ বিষয়ে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মুজিবুল হক আজাদ বলেন,এ জঘন্য সন্ত্রাসী হামলা ইতিপূর্বের একটি ঘটনার জের। আমরা শান্তিপূর্ণ সমাধান চেয়েছিলাম, আমি শুত্রুবার বেলা ৩ টায় ব্যাপারটি শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য একটি স্ট্যাটাসও দিয়েছিলাম। কিন্ত তারা আমার কথা শুনেননি, স্ট্যাটাস দেওয়ার দুইঘন্টা পর পরিকল্পিতভাবে শিবিরের নাইন স্টার গ্রুপ নান্নুর বাড়িতে হামলা চালায় এবং নান্নুর বড়ভাইকে যখন মারধর করছিল তখন মা বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা মাকে আঘাত করে।

পরিবর্তিতে নান্নুর মা নিহত হন। আমরা উখিয়া উপজেলা যুবলীগ এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি ও এ হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার দাবী করছি।
এ হামলার বিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মকবুল হোসেন মিথুন বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে এ ঘটনার নিন্দা জানাচ্ছি এবং হত্যাকান্ডে জড়িতদের গ্রেফতারপূর্বক শাস্তি দাবী করছি।

এ বিষয়ে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সিদ্বার্থ সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা আসামী গ্রেফতার করার জন্য ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। ঘটনাস্থল থেকে চলে আসার পর নান্নুর বাড়িতে হামলা করেছে বাদী পক্ষ, এরকম শুনেছি ।

এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। পরে শুনলাম আসামী নান্নুর মা মারা গেছেন। ব্যাপারটি আমি উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

 

 

 

আপনার মন্তব্য দিন