উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হলেন সাবেক ছাত্রদল নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক

অদৃশ্য শক্তির জোরে ছাত্রদল থেকে উড়ে এসে জুড়ে বসেছে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক নূরুল মোস্তফা। জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সরাসরি তার পক্ষে অবস্থান নেয়াতে ক্ষোভ বেড়েছে তৃনমূল নেতা কর্মীদের মাঝে। নূরুল মোস্তফাকে বহাল রাখতে তার ভাইপো উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়কের নেতৃত্বে মাঠে নেমেছে একটি গ্রুপ। বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ছাত্র দলের নেতাদের মাঝে চলছে পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান ।

গত ১৩ এপ্রিল টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম মুন্নাকে সভাপতি ও নূরুল মোস্তফা কে সাধারণ সম্পাদক ঘোষনা করে একটি কমিটি অনুমোদন দেয় কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ। এতে বিপত্তি বাঁধে সম্পাদক নূরুল মোস্তফাকে নিয়ে। জেলা বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির নেতা কর্মীদের সাথে নূরুল মোস্তফাসহ সৌজন্য সাক্ষাতের কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। তার সূত্র ধরে তৃনমূল নেতাকর্মী ও সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে নূরুল মোস্তফার পরিচয় এবং নেতৃত্বে আসার বিষয় নিয়ে আরো বেশী ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়। তাদের দাবী নুরুল মোস্তফাকে কখনো স্থানীয় রাজনৈতিক মাঠে দেখা যায়নি এবং কি তার রাজনৈতিক পরিচয়?

নূরুল মোস্তফা এসব ছবি গুলো একটি সামাজিক অনুষ্টানের ছবি বলে দাবী করলেও পরবর্তীতে ছাত্র দল করার পক্ষে আরো কিছু প্রমান বেরিয়ে আসে। বিষয়টি আলোচনায় আসার পর জেলা ছাত্র লীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান তার পক্ষে জোরালো অবস্থান নেন।

বিষয়টির ব্যাপারে অনুসন্ধান শুরু হলে, নূরুল মোস্তফা ২০১৬ সালে ছাত্র দলের হ্নীলা (উত্তর) শাখার ওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব ছিলেন এমন একটি অনুমোদিত কমিটি হাতে এসেছে। পরের দিন, তার ভাইপো সেই সময়ের হ্নীলা ইউনিয়ন (উত্তর) শাখার সদস্য সচিব এবং বর্তমান উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক হারুন-উর রশিদ ফেইসবুক লাউভে এসে বিষটি ভূয়া বলে চাচার পক্ষে সাফাই গেয়েছেন। তার বিপরীতে ওই কমিটির আহবায়ক মোহাম্মদ শাহীন তার ব্যক্তিগত ফেইসবুকে হারুন-উর রশিদের বক্তব্যের বিরোধীতা করেন এবং তাকে ওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সাধারণ সম্পাদক বলে জোরালো দাবী তুলেন।

নিজ দলীয় নেতা কর্মীদের বরাত দিয়ে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি শাহদাত হোসেন রিপন, নূরুল মোস্তফা ওয়ার্ড ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদ ছিলের বলে নিশ্চিত করেছেন।

কে এই নূরুল মোস্তফা?

উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের মৌলভী বাজার এলাকায় নাগু মিয়ার ছেলে। চট্টগ্রাম কাজেম আলী স্কুলে সাবেক ছাত্র। পরবর্তীতে কক্সবাজার সরকারী কলেজে এসে অনার্সে পড়াশুনা শুরু করেন। স্থানীয়দের মতে, নূরুল মোস্তফা একজন বিএনপি পরিবারের সন্তান। তার বড় ভাই নাছির উদ্দীন হ্নীলা ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক যুগ্ন- আহবায়ক। সাবেক হ্নীলা (উত্তর) শাখা ছাত্রদলের সদস্য সচিব ও টেকনাফ উপজেলা ছাত্র দলের বর্তমান আহবায়ক হারুন-উর রশিদের চাচা এবং হ্নীলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাবেক জামায়ের আমির মৃত মীর কাশেমের মাষ্টারের চাচাত ভাই। বিএনপি পরিবারের চেলে হিসেবে উপজেলা ছাত্রলীগে রাজনীতি চর্চার সুযোগ না পেয়ে ভিড়েছিলো কক্সবাজারের কিছু ছাত্রলীগ কর্মীদের সাথে। সেখানে দলাদলি না থাকার কারনে জেলা ছাত্রলীগের নেতাদের সাথে সুকৌশলে ছবির পোজ দিয়ে নিজেকে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে প্রতিষ্টা করার চেষ্টা করেন।

এবিষয়ে নুরুল মোস্তফা বলেন, তার বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা বানোয়াট গল্প। এই বিষয়ে যারা অভিযোগ তুলেছেন তারা সবাই ইয়াবা কারবারী।

জেলা ছাত্রলীগের সম্পাদকের কাছে বিষটি জানতে চাইলে, তিনি নুরুল মোস্তফার পক্ষ সাফাই গেয়ে সব কিছু তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবী করেন। যদি অভিযোগ প্রমান হলে সাংগঠনিক কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে, এসব কখনো প্রমান করতে পারবেনা, কারন আমি দ্বীর্ঘদিন ধরে তাকে চিনি বলে দাবী করে পাশ কেটে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু তার পক্ষে এতো জোরালো অবস্থানের ব্যাপারে পরিষ্কার কিছু বলতে পারেননি।

তার এই বক্তব্যে, উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাদের তোলা দাবী মতে সাধারণ সম্পাদক মারুফের হাত ধরেই সে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে অনুপ্রবেশ বিষয়টি অনেকটা পরিষ্কার হওয়া গেছে।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আবু সালমান প্রধান শাওন বলেন- তৃনমূল নেতাদের বাদ দিয়ে অন্য দল থেকে এসে পদবাগিয়ে নেয়ার কোন সুযোগ নেই। যদি তদন্তে প্রমান হলে পশ্র‍য়দাতাসহ তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক গঠনতন্ত্র মেনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক পদস্থ নেতৃবৃন্দরা বলেন- উপজেলা ছাত্রলীগে নেতৃত্ব দেয়ার মতো অন্তত ৫০ জন নেতা রয়েছে। ২৩ ফেব্রুয়ারী বর্ধিত সভা চলাকালে সকল প্রার্থীদের বায়োডেটা জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিল জেলা ছাত্রলীগ। এবং সেদিন সভায় স্বশরীরে হাজির থেকে যারা বায়োডাটা জমা দিবেনা পরবর্তীতে তারা কোন ভাবেই প্রার্থী হওয়ার সুযোগ হারাবে বলে নির্দেশ দেয়া হয়ে ছিলো। কিন্তু নুরুল মোস্তফা সেদিন তুপের মুখে পড়ার ভয়ে বর্ধিত সভায় হাজির হয়নি। সেই হিসেবে কি কিভাবে প্রার্থী হলো সেটাও প্রশ্ন তুলেন তারা।

তারা আরো বলেন- জেলা ছাত্রলীগ এতো দিন কমিটি ঘোষনা না করে, বিতর্কিত এই ছাত্রদল কর্মীকে দিয়ে কমিটি ঘোষনা দিলে তৃনমূল নেতারা আন্দোলন করবে জেনে লকডাউনের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কমিটি ঘোষনা দিয়েছেন।

তাদের দাবী তার বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ কেন্দ্রীয় ভাবে তদন্ত করা হোক। তদন্তে যদি এসব অভিযোগ ভূয়া প্রমানীত হলে তাকে অভিনন্দন। যদি সত্য প্রমানীত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হোক। একই সাথে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফকে নুরুল মোস্তফার বিরুদ্ধে অবস্থান না নেয়ার জন্য উপজেলা ছাত্রলীগ নেতাদের নিষেধ করা বন্ধ করতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

আপনার মন্তব্য দিন