শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৯:১৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
বন্য হাতির জন্য খাদ্য, নিরাপদ বাসস্থান ও প্রজননের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে- সচেতনামুলক সভায় বক্তারা কক্সবাজার সদরের খরুলিয়ায় ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে জমি দখলে মরিয়া দখলবাজ চক্র কক্সবাজার শহরে উদ্বেগ জনক ভাবে বেড়েছে ছিনতাই : নিহত-২ আতিকুর রহমানকে ফের ৯নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে দেখতে চায় এলাকাবাসী রাজনীতি থেকে সরে দাড়ালেন মহিলা আ.লীগ নেত্রী আঁখি কক্সবাজারে কথা কাটাকাটির জেরে ছুরিকাঘাতে কলেজ ছাত্র খুন টেকনাফ উপজেলা যুবদলের উদ্যোগে তারেক রহমানের ৫৬ তম জন্মদিন পালন স্বামীর পর এবার ইয়াবাসহ স্ত্রীও কারাগারে কক্সবাজারে হোটেলের ৮ তলা থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু : শরীরে আঘাতের চিহ্ন মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশ

কক্সবাজারজুড়ে আজানের ধ্বনি, ‘করোনা’ থেকে মুক্তির আকুতি

নিউজ কক্সবাজার ডটকম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ২৭ মার্চ, ২০২০

নিউজ কক্সবাজার রিপোর্ট  :

পযর্টক নগরী কক্সবাজার ও আশপাশের এলাকায় বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) রাত ১০টা থেকে রাত ১২টা অব্দি সম্মিলিতভাবে মসজিদ ও বিভিন্ন বাসা-বাড়ি থেকে আজান দিতে শোনা গেছে।
অঘোষিত ‘লকডাউনে’ সুনসান শহরে রাতের নিস্তব্ধতাকে ভেঙে খান খান করে দিয়েছে ওই আজানের সেই ধ্বনি।
বিশ্বজুড়ে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া ঘাতকব্যাধি করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে এ আজান বলে সুত্রে প্রকাশ।

বিভিন্ন মসজিদে আর ঘরের জানালা বা বারান্দায় দাঁড়িয়ে স্থানীয় শহরবাসি এই আজান দেন। করুণ সেই সুরে ছিল ‘করোনা’ থেকে মুক্তির আকুতি। মহান স্রষ্টার কাছে ওই আকুতি, তিনি যেন মানুষের ভুল-ক্রুটি গুলো ক্ষমা করে দিয়ে এই দুনিয়াকে আবারও বাসযোগ্য ও নিষ্কন্টক করে দেন।

জানা গেছে, স্থানীয় অধিবাসিরা উদ্যোগ নিয়ে এই আজানের আয়োজন করেছেন। তারা করোনা রোগের প্রাদূর্ভাব থেকে বাঁচতে আজান দিয়ে আল্লাহর সন্তুষ্টি পাওয়ার চেষ্টা করেছেন।

স্থানীয় বিভিন্ন সুত্র জানায়, শুধু কক্সবাজার শহর নয়, জেলার বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ থেকে সম্মিলিতভাবে আজান দিতে শোনা গেছে ।

ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, আজান ইসলামের এক মৌলিক ইবাদত। এটি মানুষকে নামাজের দিকে আহ্বান করে। আজানের মাধ্যমে আল্লাহর রহমত অবতীর্ণ হয়, বিপদ ও আজাব দূরীভূত হয়।
মহামারির সময় আজান দেয়া একটি মুস্তাহাব বিষয়। ফিকহে হানাফীর প্রসিদ্ধ গ্রন্থ রদ্দুল মুখতার বা ফতোয়ায়ে শামীতে আজানদানের ১০টি মুস্তাহাব সময়ের মধ্যে মহামারির সময় আজানের কথা উল্লেখ রয়েছে।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা মহামারি থেকে রক্ষায় অন্যান্য আমলের পাশাপাশি আজান দেয়া একটি শরীয়ত সমর্থিত মুস্তাহাব আমল। এটার জন্য কোনো সময় নির্ধারিত নেই বলেও জানিয়েছেন ইসলামি চিন্তাবিদরা।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি করোনা মহামারিতে আক্রান্ত স্পেনেও করোনাভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য স্রষ্টার কৃপা পেতে সম্মিলিতভাবে আজানের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশি মুসলিম কমিউনিটি ওই আজানের আয়োজন করে। মাগরিবের সময় মুসলিম কমিউনিটির প্রত্যের বাড়ির দরজা-জানালা থেকে ওই আজান ধ্বনিত হয়।

এটি ছিল আধুনিক স্পেনে প্রায় সাড়ে ৫ শত বছর পর প্রকাশ্যে আজানের ধ্বনি।

 

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো সংবাদ>>
© All rights reserved © 2017-2020 নিউজ কক্সবাজার ডটকম
Theme Customized By Shah Mohammad Robel