কক্সবাজার কলাতলীর সুইটহোম কক্ষে মিললো যুবকের লাশ : ২ ঘাতক আটক!

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন।।

কক্সবাজার শহরের কলাতলীর কটেজ জোনের সুইটহোম কটেজ থেকে আবদুল মান্নান নামের এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ।

মঙ্গলবার বিকাল ৫টার দিকে সিআইডি ও কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ টীম লাশটি উদ্ধার করেন।
নিহত আব্দুল মালেক (২৮) কক্সবাজার শহরের বাদশাঘোনা সওদাগর পাড়ার জাগির হোসেনের ছেলে। তিনি শহরের বড় বাজারে মৎস্য ব্যবসায়ী ছিলেন।
পুলিশের একটি সুত্র জানিয়েছেন, এই হত্যা কান্ডে জড়িত সন্দেহ ভাজন দুইজনকে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী ব্রিজ এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

কক্সবাজার সদর থানার উপ-পরিদর্শক আবু রায়হান বলেন, বিকালে হোটেল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। কক্ষের খাটের নিচে মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা এক যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

“প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি হত্যাকাণ্ড। খুনিরা গলায় তার পেচিয়ে তাকে হত্যা করেছে।”

হোটেল সুইট হোম রিসোর্টের ম্যানেজার সৌরভ কবির জানান, গত সোমবার সকালে ঢাকা থেকে আসা মো. বাবু এবং মো. নজরুল ইসলাম একদিনের জন্য ভাড়া নিয়ে তাদের হোটেলের ওই কক্ষে ওঠেন। দিনভর হোটেলেই অবস্থান করছিলেন তারা।
তার ধারণা, পূর্ব পরিচয়ের সূত্রে দিনের কোনো এক সময় নিহত আব্দুল মালেক ওই কক্ষে আসেন।
হোটেল ম্যানেজার আরও বলেন, মঙ্গলবার বেলা ১২টার পর হোটেল কক্ষ ছাড়ার সময় হলে কর্মচারীরা ভেতর থেকে দরজা বন্ধ পান। অনেকক্ষণ ডাকাডাকির পরও সাড়া না পেয়ে বিকল্প চাবি দিয়ে কক্ষের দরজার খোলা হয়। এ সময় কক্ষের মেঝেতে একজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে জানানো হয়।

হোটেল রেজিস্ট্রারে (নিবন্ধন খাতায়) লেখা উল্লেখ করে সৌরভ বলেন, ঢাকার খিলগাঁও থানার মালিবাগের বাসিন্দা আব্দুস সালামের ছেলে মো. বাবু এবং আবুল কাশেমের ছেলে মো. নজরুল ইসলাম কক্ষটি ভাড়া নিয়েছিলেন।

সিসিটিভির ভিডিওতে দেখা যায় হোটেল কক্ষ ভাড়া নেওয়া ওই দুই যুবক সোমবার রাত ১০টা ২২ মিনিটে হোটেল থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি।
লাশ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
এদিকে, পুলিশের একটি সুত্র জানিয়েছেন, এই হত্যা কান্ডে জড়িত সন্দেহ ভাজন দুইজনকে রক্তমাখা জামাসহ চট্টগ্রামের কর্ণফুলী ব্রিজ এলাকা থেকে কর্ণফুলী থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। তারা বাস যোগে ঢাকা যাওয়ার পথে কর্ণফুলী ব্রিজে পুলিশের তল্লাশিতে  তারা সন্দেহভাজন হওয়ায় তাদের আটক করে পুলিশ।

আপনার মন্তব্য দিন