জনগণের পাশে থেকে সেবা করতে চাই-রশিদনগর ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী হান্নান ছিদ্দিকী

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন / আমান উল্লাহ আনোয়ার।।

কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার রশিদ নগর ইউনিয়নের একজন বাসিন্দা মো. হান্নান ছিদ্দিকী। তিনি একজন সাবেক মেম্বার, ছিলেন চেয়ারম্যান প্রার্থীও।

একজন সমাজসেবক, সফল ব্যবসায়ী হিসেবেও বেশ পরিচিত তিনি। জনগণের পাশে থেকে কাজ করার প্রত্যয়ে আগামীতে রশিদনগর ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। এমনকি জনগণের সেবা করার জন্যই চেয়ারম্যান নির্বাচন করবেন বলে জানালেন তিনি। ইউপি নির্বাচনী বিষয় নিয়ে ‘ নিউজ কক্সবাজার ডটকম’ কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মো.হান্নান ছিদ্দিকী বলেন তার ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথা।

মো.হান্নান ছিদ্দিকী রশিদনগরের ঐতিহ্যবাহি পরিবারের সন্তান ও একজন পরিশ্রমী মানুষ। ১৯৯১ সাল থেকে মামুন মিয়ার বাজারে (পানিরছড়া) সুনামের ব্যবসা করে আসছেন।

মামুন মিয়ার বাজার এলাকায় মো. হান্নান ছিদ্দিকীসহ অপরাপর ভাইয়েরা গড়ে তুলেন বাবার নামে এরশাদ ট্রেডিং ( এলপিজি সিলিন্ডার গ্যাস), এরশাদ ফিলিং স্টেশন, তুষের লাকড়ীর মিলসহ আরও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

১৯৯৮ সালে রশিদ নগর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড থেকে বিপুল ভোটে মেম্বার নির্বাচিত হন হান্নান। অত্যন্ত সুনাম ও সততার সাথে তিনি ৫ বছর জনগণের সেবা করে যান।
মুলত লিডারশীপ গড়ে তুলেছেন দাদা, নানা ও বাবার আর্দশ থেকে। তারাও ছিলেন জনগণের সেবক।

তার পিতা মরহুম এরশাদুল হক
১৯৮৪ সালে বৃহত্তর জোয়ারিয়ানালা ইউপির মেম্বার ছিলেন। তার দাদা মরহুম এজাহার মিয়াও স্বাধীনতা পুর্ববর্তী বৃহত্তর জোয়ারিয়ানালা ইউপির মেম্বার ছিলেন। তার নানা মরহুম আবু বক্কর ছিদ্দিক স্বাধীনতা পুর্ববর্তী ঝিলংজা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন।

মামা মরহুম মাহামুদুল হক ওসমানী ঝিলংজা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও মামা আবু জাফর ছিদ্দিকী কক্সবাজার পৌরসভার জনপ্রিয় কাউন্সিলর ছিলেন।
বংশপরমপরায় তিনিও জনগণের খেদমত করতে যাচ্ছেন।

এলাকায় রয়েছে মো. হান্নান ছিদ্দকী পরিবারে রয়েছে ঐতিহ্য। সফল ব্যবসায়ী পরিবার হিসেবেও ব্যাপক পরিচিত তারা। তিনি একজন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবেও অনেক পরিচিত। শুধু তাই নয়, অসহায় দরিদ্রের বন্ধু বলেও সবার মাঝে পরিচিত। যে কোন সামাজিক কাজে ছুটে আসেন তিনি৷ এমনকি ভালো কাজকে হ্যা এবং খারাপ কাজকে না বলে থাকেন৷ সবসময় ন্যায়ের পক্ষে এবং অন্যায়ের বিপক্ষে কথা বলেন তিনি৷

ব্যবসার পাশাপাশি তিনি জড়িত ছিলেন নানান সামাজিক কর্মকান্ডে। তিনি পানিরছড়া বড় কবরস্থান কমিটির সভাপতি, ধলিরছড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য, মামুনমিয়া বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাবেক সদস্য সচিব ।

এভাবেই মানুষের পাশে থাকার কারনে ধীরেধীরে বাড়তে থাকে সমাজে তার জনপ্রিয়তা৷ জনগণের একটাই কথা তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে পাল্টে যাবে এই রশিদনগর ইউনিয়নের চিত্র। রশিদনগর হবে মডেল ইউনিয়ন। আরও থাকবে না রাস্তাঘাটের কারণে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি। এমনকি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সার্বক্ষণিক নাগরিক সেবা পাবে জনগণ।

রশিদনগর ইউনিয়নের অনেক বাসিন্দা জানিয়েছেন, অন্যায় ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে একজন প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর তিনি। কোন অনিয়ম দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেন না হান্নান। এমনকি মাদকের বিরুদ্ধে সবসময় কঠোর৷ তরুণ ও যুবসমাজ যেন মাদকের ভয়াবহ ছোঁবলে না পড়ে সেজন্য রশিদনগরে বিভিন্ন এলাকায় যুব ও তরুণদের নিয়ে মতবিনিময় করে থাকেন৷ তিনি একজন আওয়ামীলীগের একনিষ্ঠ ও সক্রিয় কর্মী।

সবমিলিয়ে মো.হান্নান ছিদ্দিকীকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে দেখতে চান স্থানীয় সাধারণ জনগণ। তবে এখন সময়ের অপেক্ষায় রয়েছে রশিদনগর ইউনিয়নবাসী।

এমনকি দলীয় মনোনয়ন দিলে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের ক্ষেত্রেও তিনি অনেকটাই আলোচিত বলে জানা গেছে৷ নির্বাচনের ভোটের মধ্য দিয়ে মো.হান্নান ছিদ্দিকী বিজয় নিশ্চিত হবে বলেও জানান এলাকাবাসী।

অন্যদিকে অসহায় দরিদ্ররা অর্থের অভাবে চিকিৎসা নিতে না পারায় তিনি তাদের পাশে থেকে চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে থাকেন৷ এমনকি মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের মাঝে সাহায্য ও সহযোগিতা দিয়ে থাকেন তিনি৷ রশিদনগর এলাকায় সবার মুখে এখন তারই কথা। আগামী দিনের জনগণের প্রতিনিধি হবেন হান্নান।
মো. হান্নান ছিদ্দিকীরা তিন ভাই, ৪ বোন। সব ভাইয়েরা ব্যবসায়ী। তিনি ১ মেয়ে ও দুই ছেলের জনক। তার বড় ছেলে নাহিদা এরশাদ নয়ন একজন বিমান পাইলট, অপর ছেলে কলেজে পড়েন। সন্তানদের সুুুুশিক্ষিত করছেন তিনি।

আসন্ন নির্বাচনে রশিদনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. হান্নান ছিদ্দিকী ‘‘নিউজ কক্সবাজার ডটকম কে’ বলেন, জনগণ চাচ্ছে বলেই অামি নির্বাচন করতে ইচ্ছে প্রকাশ করেছি। আগের চেয়ারম্যানের নানান কর্মকান্ডে সাধারণ মানুষ সন্তুষ্ট নয়, জনগণ আমাকে চাচ্ছে। জনগণ আমাকে চাওয়ার কারণ, জনগণের সেবা করার মতো যোগ্যবলে মনে করছেন। জনগণের ভোট ছাড়া আমি নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারবো না৷ তাই জনগণের সিদ্ধান্তই আমার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

তিনি আরও বলেন, আমরা মানুষ জাতি হিসেবে অন্যদের পাশে থেকে তাদের সেবা করাটা আমাদের দায়িত্ব। আগামীতে আমি ইউপি নির্বাচন করবো শুধু জনগণের সেবা করার জন্য। বংশের ঐতিহ্য আর জনসেবার ইচ্ছা নিয়ে বিগতদিন থেকেই স্বপ্ন ছিল জনপ্রতিনিধি হয়ে জনগণের পাশে থাকবো৷ আগে মেম্বার নির্বাচনে জয়ী হয়ে জনগণের সেবা করেছি।

তাই সকলের চাওয়ায় আমি চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করবো বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন,যাতে মানুষের সেবা করতে পারি৷

আপনার মন্তব্য দিন