জনতার চিকিৎসক হতে চান আব্দুল হাকিম

শাহ মুহাম্মদ রুবেল, কক্সবাজার

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ওয়াব্রাং গ্রামের মখলেচুর রহমান ও মরিয়ম খাতুন দম্পতির ছোট ছেলে আব্দুল হাকিম বুলবুল । ১০ ভাই-বোনের মধ্যে সর্ব কনিষ্ঠ বুলবুল সদ্য মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় পাস করেছেন।

তার বাবা মখলেচুর রহমান পেশায় ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। বর্তমানে তিনি বাড়িতেই অবসর সময় কাটাচ্ছেন।

বুলবুল হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয় এবং কক্সবাজার সরকারি কলেজে থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে এসএসসি ও এইচএসসি সম্পন্ন করেন। এরপর ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় পাশ করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান তিনি।

আব্দুল হাকিম বুলবুলের চিকিৎসক হওয়ার বীজ বপনের সময়টা কাটে অজপাড়া গ্রামের একটা ছোট মাদ্রাসায় (ইমাম আবু হানিফা (রহঃ) দাখিল মাদ্রাসা) পড়াকালীন সময়ে। এই মাদ্রাসা থেকেই ২০১২ সালে ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি।

এ দিকে আব্দুল হাকিম বুলবুল চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাওয়ার খবরে এলাকাবাসী আনন্দিত। আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবসহ অনেকেই প্রতিদিন তার সঙ্গে দেখা করতে আসছেন।

আব্দুল হাকিম বুলবুল বলেছেন, আল্লাহ তায়ালার কাছে শুকরিয়া এবং বাবা-মা, ভাই-বোন ও শিক্ষকদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সকলের চেষ্টা ও দোয়ার কারণে আজ এতদূর আসতে পেরেছি।

তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে আমার ভাইয়ের অনুপ্রেরণায় আমার ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখা। ছোট বেলা থেকে মানুষের জন্য কিছু করার তীব্র চাহিদা মনের মধ্যে লালন করতাম। এই অর্থে আমি ডাক্তারি পেশাটা পছন্দ করি। কারণ সাধারণ মানুষের কাছে যাওয়ার একমাত্র সুযোগ। আল্লাহ তায়ালা হয়ত আমার চিন্তাটা বাস্তবায়ন করার জন্য আমাকে এই সুযোগ দিয়েছেন।

মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি এবং ভবিষ্যৎ পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিন শেষ করা। নিয়মিত মডেল টেস্ট দেওয়া, কোনোভাবেই এটি বাদ দেওয়া যাবে না। যে প্রশ্নগুলোর উত্তর সঠিক হয়নি সেগুলো বাসায় এসে আবার দেখে নেওয়া। সৃষ্টিকর্তার কাছে সবসময় প্রার্থনা করা। সৎ ইচ্ছা পোষণ করা, যে কোনো পরিস্থিতিতে শক্ত থাকার মন মানসিকতা তৈরি করা। মা-বাবাকে সম্মান করা। সবার সাথে নম্র-ভদ্র আচরণ করা।

উল্লেখ্য, সাধারণ মানুষের চিকিৎসক হতে দেশ বাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন আব্দুল হাকিম বুলবুল ।

আপনার মন্তব্য দিন