সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
Homeচকরিয়াজমে উঠেছে কক্সবাজার-১ আসনের নির্বাচন

জমে উঠেছে কক্সবাজার-১ আসনের নির্বাচন

মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেল, চকরিয়া(কক্সবাজার):

আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের দিনক্ষণ যত ঘনিয়ে আসছে তথই জমে উঠেছেন নির্বাচনী আমেজ।কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে ২৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় দিনরাত প্রচার চালাচ্ছেন হাতঘড়ি ও ট্রাক প্রতিকের সমর্থকরা। বিভিন্ন এলাকায় কওে যাচ্ছেন সভা- সমাবেশসহ উঠান বৈঠক। ভোট নিজের দিকে আনতে দিয়ে যাচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। জমেছে নির্বাচনী খেলা।এ আসনে দলীয় এমপিকে পিচ দিয়ে মেজর জেনারেল (অব) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমকে জয়ী করতে একাট্টা হয়ে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন আ. লীগ নেতাকর্মীরা।

এদিকে, গত ৩০ডিসেম্বর বিকালে চকরিয়া পৌরসভার শহিদ আবদুল হামিদ বাস টার্মিনালে এক পথসভা অনুষ্টিত হয়েছে। এই পথসভায় জেলা আওয়ামীলীগের নেতারা এসময় বলেন, কেন্দ্রের নির্দেশের জেলা ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ কল্যাণ পার্টি সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম তথা হাতঘড়ির পক্ষে কাজ করছি। সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমকে নির্বাচিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।আওয়ামীলীগের যারা হাতঘড়ির বিরোধীতা করবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করলেও মুল লড়াই চলছে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান তথা হাতঘড়ির প্রার্থী মেজর জেনারেল (অব) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতিক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী তথা ট্রাক প্রতিকের জাফর আলম। এই দুই প্রার্থী সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচারণা। দুই প্রার্থীর পক্ষেই হাজার হাজার কর্মী-সমর্থকদের দেখা যাচ্ছে। তবে, অন্য পাঁচ প্রার্থীরা তেমন প্রচার-প্রচারণায় দেখা যাচ্ছেনা।

চকরিয়া-পেকুয়ায় কল্যাণ পার্টির তেমন জনসমর্থন না থাকলেও জেলা ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের ব্যাপক প্রচারণায় অনেকটা এগিয়ে গেছে হাতঘড়ির প্রার্থী সৈয়দ ইবরাহিম। জেলা ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা-কর্মীদের কাঁদে চড়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার করতে চাই সৈয়দ ইবরাহিম।

অপরদিকে, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাফর আলমও স্থানীয় আওয়ামীলীগের একটি অংশের সহযোগিতায় পার করতে চাইছে নির্বাচনী বাঁধা। তিনি তার নিজের বলয়ের কয়েকটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে, এরমধ্যে বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গরুচুরিসহ নানা অভিযোগও রয়েছে। বসে নাই তার পরিবারের সদস্যরাও।

প্রতিদিন সভা-সমাবেশ ও উঠান বৈঠকে বক্তব্য দিচ্ছেন জাফর আলমের ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী তথা ঈগল প্রতিকের প্রার্থী তানভীর আহমদ সিদ্দিকে তুহিন, স্ত্রী সরকারি স্কুলের শিক্ষিকা শাহেদা জাফর, মেয়ে জেলা পরিষদ সদস্য তানিয়া আফরিন, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু মুসা, মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বাবলা, পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহেদুুল ইসিলাম লিটু, সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরী।এসব মিলিয়ে একটু পিছিয়ে পড়েছে জাফর আলম।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, স্বতন্ত্র প্রার্থী জাফর আলম নির্বাচনী প্রচারণাকালেভোটারদের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। কল্যাণ পার্টির প্রার্থী ইবরাহিমকে নিয়ে করছেন নানা কঁটুক্তি। হাতঘড়ির প্রার্থীর বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারী হওয়ায় তাকে বহিরাগত বলেও কঁটুক্তি করছেন। এসময় তিনি ঘরের ছেলের পক্ষে রায় দেয়ার জন্যও অনুরোধ জানান।

কল্যাণ পার্টির প্রার্থী তথা হাতঘড়ির প্রার্থী বিভিন্ন পথসভায় বক্তব্য রাখছেন। এসময় তিনি ভোটারদের নানা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। তিনি নির্বাচিত হলে এলাকা থেকে গরুচুরি, ডাকাতি, মৎস্যঘের দখল, মানুষের জমি দখল আর করতে দেয়া হবেনা। গত পাঁচ বছরে চকরিয়া-পেকুয়ার এমন কোন মানুষ নেই যারা জুলুম-নির্যাতনে শিকার হননি। তিনি এমপি নির্বাচিত হয়ে নিজের আখের ঘুছিয়েছেন। সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।
তিনি আরও বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমার কোন এলাকা নেই। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি সিলেটের হবিগঞ্জ,ব্রাক্ষণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যুদ্ধ করেছি। তখনতো কেউ বহিরাগতের প্রশ্ন তুলেনি। এখন কেন এই কথা আসছে। এই এলাকার মানুষ আমাকে গ্রহণ করেছে। যেখানে যাচ্ছি সেখানেই সাড়া পাচ্ছি। আগামী সাত জানুয়ারি নির্বাচিত হলে ৮ তারিখ থেকে এই জুলুমবাজের বিরুদ্ধে অবস্থান নিবো।
স্বতন্ত্র প্রার্থী জাফর আলমকে নিয়ে তিনি অভিযোগ করেন,তিনি কালো টাকার বিনিময়ে ভোট কিনতে চাচ্ছেন। কিন্তু এই এলাকার মানুষ সেই ভুল আর করবে না। তিনি আমার কর্মী-সমর্থকদের নানাভাবে হুমকি-ধুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন। প্রশাসনকে এই ব্যাপারে বারবার অবহিত করা হলেও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে কোন অভিযানও চোখে পড়ছে না।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments