টেকনাফ পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে জুবাইয়েরের মনোনয়ন বৈধ

বিশেষ প্রতিনিধি

টেকনাফ পৌর নির্বাচনে ৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে যাচাই বাচাই কালে ঋন খেলাপীর অভিযোগে বাতিল বলে গন্য হওয়া জুবাইয়েরের মনোনয়ন বৈধ বলে ঘোষনা দিয়েছেন উচ্চ আদালত। উচ্চ আদালতে মনোনয়নের বৈধতা চেয়ে জুবাইয়েরের করা রীটে তার প্রার্থীতা বৈধ ঘোষনা করায় নির্বাচন করতে কোন বাঁধা রইলোনা বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবি এডভোকেট মোঃ সাইফুর রহমান।

আজ মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসান ও রাজিক আল জলিল এর দ্বৈত বেঞ্চ এই রায় ঘোষনা করেন।

নির্বাচন অফিসের সূত্র অনুযায়ী, আগামী ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপের টেকনাফ পৌর নির্বাচন অনুষ্টিত হওয়ার কথা রয়েছে। তফসিল ঘোষনার পর ৯ নং ওয়ার্ডে ৪ জন প্রার্থী উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে মনোনয়ন সংগ্রহ করে ২৫ নভেম্বর মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। ২৯ নভেম্বর মনোনয়ন যাচাই বাচাইকালে উপজেলা রিটার্নিং অফিসার বেদারুল ইসলাম ঋন খেলাপীর অভিযোগে জুবাইয়েরের মনোনয়ন বাতিল ঘোষনা করেন।

২৯ নভেম্বর ঋন পরিশোধ করে প্র‍য়োজনীয় কাগজ পত্রসহ ৫ ডিসেম্বর প্রার্থীতা ফেরত চেয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করলে তিনি তা খারিজ করে দেন বলে জানাগেছে।

এদিকে, প্রার্থীতা ফেরত চেয়ে মোঃ জুবাইর হাইকোর্টের বিচারপতি জে বি এম হাসান ও রাজিক আল জলিল এর আদালতে রিট পিটিশন দায়ের করেন। যার (রিট পিটিশন নং- ১২৭১৫/২০১২)। রীটের শুনানী শেষে ১৪ ডিসেম্বর মোঃ জুবাইয়েরের প্রার্থীতা বৈধ ঘোষনা করে উচ্চ আদালত।

জুবাইয়েরের আইনজীবী এডভোকেট মোঃ সাইফুর রহমান জানান, উচ্চ আদালতের রায় মোতাবেক এখানে নির্বাচন কমিশনের প্রশ্ন তোলার কোন সুযোগ নেই। সুতরাং বিধি মোতাবেক জুবায়েরের প্রার্থীতা ফেরত পাবে এবং নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করতে আর কোন আইনী বাঁধা নেই।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন জানান, একটি অডভোকেসি কপি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছি। উচ্চাদালতের রায়ের কপি হাতে এলেই বিধি মোতাবেক দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ জুবাইয়ের জানান, একটি প্রভাবশালী মহল আমার জনপ্রিয়তা দেখে আমাকে শুরু থেকেই নির্বাচন থেকে সরানোর চক্রান্তে ব্যর্থ হয়ে সর্বশেষ কৌশলে আমার প্রার্থীতা বাতিল করেছিলো। জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদনের পরেও আমি ন্যায় বিচার পাইনি। আগে পছন্দের প্রতিক উটপাখি বরাদ্দ হয়ে গেছে তাই এবারে আমি পানির বোতল প্রতিক বেঁছে নিয়েছি। ভোটারদের উপর আমার আস্থা আছে। সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে সুস্থ নির্বাচন হলে আশাকরি আগামী ভোটাররা আগামী ২৬ তারিখ পানির বোতল প্রতিকে ভোট বিপ্লব ঘটাবে।

আপনার মন্তব্য দিন