মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মানহানি মামলায় নিন্দা

বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ-বিএসপিপি’র আহ্বায়ক ও আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে এক হাজার কোটি টাকার মানহানি মামলার প্রতিবাদ ও নিন্দা করেছে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ।

আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে পেশাজীবী পরিষদের নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘সত্য ও ন্যায়নিষ্ঠ সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে এর আগে সরকার একাধিকবার গ্রেফতার করেছে এবং তার বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা দেয়া হয়েছে এবং তাকে আবারও কারাগারে নিক্ষেপ করার হীন চক্রান্ত শুরু করেছে ক্ষমতাসীনেরা। আমরা অবিলম্বে মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি এবং এহেন অপতৎপরাত ও অপচেষ্টার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন- বিএসপিপি’র সদস্য সচিব ও ড্যাব মহাসচিব অধ্যাপক ডাঃ এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, বিএফইউজের সভাপতি, শওকত মাহমুদ, মহাসচিব এম. আবদুল্লাহ, ড্যাবের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা: মোস্তাক রহিম স্বপন, ড্যাবের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব ডা: এস. এম. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, ডিইউজের সভাপতি আব্দুল হাই সিকদার, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, অ্যাসোসিয়েশন অব ইঞ্জিনিয়ার্সের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আ ন হ আক্তার হোসেন, ভারপ্রাপ্ত মহসচিব ইঞ্জিনিয়ার হাসিন আহমদ, প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমদ, সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, অ্যাসোশিয়েশন অব এগ্রিকালচারিস্টের আহবায়ক আনোয়ারুন নবী মজুমদার বাবলা, সদস্য সচিব- কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, কৃষিবিদ শামীমুর রহমান, শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের অতিরিক্ত মহাসচিব জাকির হোসেন, ইউট্যাব সভাপতি সাবেক প্রো-ভিসি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক তাহমিনা আক্তার টফি, ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদা দলের আহবায়ক অধ্যাপক ড. আক্তার হোসেন, সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক জোটের মহাসচিব মোঃ রফিকুল ইসলাম, জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম জাবির আহবায়ক অধ্যাপক ড. কামরুল আহসান, এমবিএ এসোসিয়েশনের সভাপতি সৈয়দ আলমগীর, মহাসচিব জনাব শাকিল ওয়াহেদ, সাবেক ভিসি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক ড. খন্দকার মুস্তাহিদুর রহমান।

আপনার মন্তব্য দিন