মিয়ানমার সীমান্তে গুলির আওয়াজ হলেও প্রতিবাদ জানাবে বিজিবি

মিয়ানমার সীমান্তে গুলির আওয়াজ হলেও প্রতিবাদ জানাবে বিজিবি

আবদুর রহমান, কক্সবাজার

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ বলেছেন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষের প্রভাব বাংলাদেশে পড়ার সুযোগ কম। তারপরও সীমান্ত সুরক্ষায় বিজিবি সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।

সোমবার বাংলাদেশ-মিয়ানমার তুমব্রু সীমান্ত ঘুরে দুপুরে ঘুমধুমের রেজুপাড়ার বিজিবির চৌকিতে সাংবাদিকদের আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি।

বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, “মিয়ানমার সীমান্তে ঘটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা বাংলাদেশ কূটনৈতিকভাবে মোকাবিলা করছে। সীমান্তের ওপারে একটা গুলির শব্দ হলেও তার প্রতিবাদ জানাবে বিজিবি।”
“সীমান্তে উত্তপ্ত এ পরিস্থিতির কারণে যাতে মিয়ানমারের কোনো নাগরিক বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য কঠোর হবে বিজিবি। এ ছাড়া ইয়াবা, স্বর্ণ চোরাচালানসহ যেকোনো ধরনের অপরাধ ঠেকাতে ২৪ ঘণ্টা নিয়োজিত থাকছে আমাদের প্রহরীরা,” বলেন শাকিল আহমেদ।

মিয়ানমার সীমান্তবর্তী এলাকায় মাইন পুঁতে রাখায় শূণ্যরেখা অতিক্রম করে কাঁটাতারের ওপারে না যেতে বাংলাদেশের সীমান্তে বসবাসকারীদের নির্দেশনা দেন বিজিবি মহাপরিচালক।

প্রায় দুই মাস ধরে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তমব্রু, কোনার পাড়া, উত্তর পাড়া, বাইশফাঁড়ি ও চাকমা পাড়াসহ উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন সীমান্তে মিয়ানমারের অভ্যন্তর দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী আরাকান আর্মির সংর্ঘষ চলছে।

এই পরিস্থিতিতে মিয়ানমারের দিক থেকে ছোড়া মর্টার শেলসহ বিভিন্ন গোলাবারুদ বাংলাদেশে এসে পড়ে। কয়েকবার আকাশসীমা লঙ্ঘন করে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর যুদ্ধবিমান। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ছোড়া মর্টার শেলের আঘাতে ঘুমধুমের কোনার পাড়া সীমান্তের শূন্যরেখার ক্যাম্পে এক রোহিঙ্গা শিশু নিহত এবং পাঁচজন আহত হয়।বেনারনিউজ

Related Articles