রামু পানেরছড়ায় মানুষ-হাতি সংঘাত নিরসন ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে সভা অনুষ্ঠিত  

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, সম্পাদক, নিউজ কক্সবাজার।।

কক্সবাজারে কক্সবাজার  দক্ষিণ বন বিভাগের আওতাধীন পানেরছড়া রেঞ্জে তুলাবাগান এলাকায় বুধবার ( ৩ মার্চ) “মানুষ–হাতি সংঘাত নিরসন” শীর্ষক বন্যপ্রাণী সংরক্ষন, সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য ও বনসম্পদ রক্ষাকল্পে জনসচেতনতা মূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস উপলক্ষে কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের  সহযোগিতায় ও পানেরছড়া রেঞ্জের আয়োজনে অনুষ্ঠিত জনসচেতনতা মূলক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ( ডিএফও) মো. হুমায়ুন কবীর।
রামু পানেরছড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা তৌহিদুর রহমান টগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মাবুদ মাবু।

জনসচেতনতা মূলক সভায় ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের নারী সদস্যা  মনোয়ারা চৌধুরী, ১নং ওয়ার্ড সদস্য জানে আলমসহ রেঞ্জ কার্যালয়ের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী ও স্থানীয় জনগণ উপস্থিত ছিলেন।
সভায় বক্তারা বলেন, মানুষ হাতি সংঘাত নিরসন ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে বনবিভাগের পাশাপাশি এলাকাবাসীকেও এগিয়ে আসতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের  বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, বন্যপ্রাণী  ও বন্যহাতি সংরক্ষণ আমাদের  নৈতিক দায়িত্ব । বন্যপ্রাণী বাঁচলে, বাঁচবে পরিবেশ। আর পরিবেশ বাঁচলে আমরা বাঁচবো। নির্বিচারে বন্যপ্রাণী হত্যা ও শিকার করা থেকে বিরত থাকার আহবান জানান তিনি।
তিনি বলেন, আঘাত করে বন্য হাতিদের হত্যা করলে প্রকৃতির ভারসাম্যে বিরাট প্রভাব ফেলবে।

তিনি আরও বলেন,  সামাজিকভাবে সচেতন হয়ে আমাদেরকে মানুষ ও হাতি সংঘাত নিরসন করে বন্যপ্রাণী ও হাতিদের বাঁচাতে এগিয়ে এসে বন সম্পদ রক্ষার্থে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। বন্যহাতি লোকালয়ে চলে আসলে বনবিভাগকে অবগত করার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, হাতিকে যেন আক্রমণ  করা না হয়।
বন্য হাতি, বন্যপ্রাণী, বনজদ্রব্য, ও বনভূমি রক্ষার্থে বন বিভাগ সর্বদা সজাগ রয়েছে।

মানুষ ও হাতির সংঘাত নিরসন, বনজসম্পদ, বন্যপ্রাণী রক্ষা ও বনভূমি জবরদখলের বিরুদ্ধে  অভিযান অব্যাহত রেখে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বন্যপ্রাণী হত্যার বিষয়ে তথ্য প্রদানকারীকে পুরষ্কারের ব্যবস্থা রয়েছে। সঠিক তথ্য দিয়ে বনবিভাগকে সহযোগিতা  করার জন্য উপস্থিত সকলকে অনুরোধ জানান তিনি।
সভায় সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেন ফরেস্টার সোহেল রানা ও ফসিউল আলম।

এদিকে, একই দিন বুধবার উখিয়া রেঞ্জের আয়োজনে অনুরুপ জনসচেতনতা মুলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো.হুমায়ুন কবীর বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের গুরুত্ব জনগণের নিকট তুলে ধরেন।

 

 

 

 

আপনার মন্তব্য দিন