রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অাগুন নিয়ন্ত্রণে -ক্ষয়ক্ষতি কয়েক কোটি ছাড়িয়ে যাবে!

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন।।

কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালীর চারটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে চারটি ক্যাম্পের
অন্তত সাড়ে ৪ হাজারের বেশি ঘর ও দোকান পুড়ে গেছে। টানা ৬ ঘন্টা পর ফায়ার সার্ভিসের সাতটি ইউনিট রাত ৯ টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। তবে হতাহতের সংখ্যা এখনো নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি।
আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সাত ইউনিট। তাদের সঙ্গে উদ্ধারকাজে যোগ দিয়েছে সেনাবাহিনী ও বিজিবি।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আগুনে বেশ কয়েকজনের প্রাণহানির খবর পাওয়া যায়, তবে নিরুপণ করা যায়নি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও।
আগুনে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অন্যতম বৃহৎ হাসপাতাল তুর্কী হাসপাতালসহ অন্তত ৮টি হাসপাতাল আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
োএছাড়া ক্যাম্প ৮ ডব্লিউ, ক্যাম্প-৯ ও ক্যাম্প-১০ এ অন্তত পাঁচ হাজার ঘর, হাসপাতাল, মসজিদ, মাদ্রাসা,দোকান সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
শরণার্থী ত্রাণ প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার মো. শামসুদ্দোজা নয়ন জানিয়েছেন, সোমবার বিকেল ৩টায় উখিয়ার বালুখালী ৮-ডব্লিউ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ওই ক্যাম্পের সব ঘর পুড়ে যায়। পরে ক্যাম্পটির লাগোয়া ৮-এইচ, ৯ ও ১০ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে ওই আগুন। তবে আগুনের সূত্রপাতের কারণ এখনো নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি।
অতিরিক্ত ত্রাণ ও শরণার্থী প্রত্যাবাসন কমিশনার আরও বলেন, ফায়ার সার্ভিসের উখিয়া স্টেশনের দুইটি ইউনিটের পাশাপাশি টেকনাফের ২ টি, কক্সবাজারের ২ টি এবং রামুর ১ টি ইউনিট ৯ টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।
তিনি জানান, বাতাসের গতিবেগ বেশী হওয়ায় আগুণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় প্রাণহানিসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ক্যাম্পগুলো থেকে লোকজনকে অন্যত্রে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ও হতাহতের সংখ্যা নির্ধারণে কাজ চলছে।

 

আপনার মন্তব্য দিন