রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯ অক্টোবর পালনকারীদের খুঁজছে পুলিশ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯ অক্টোবর পালনকারীদের খুঁজছে পুলিশ

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯ অক্টোবরকে ‘খুশির দিন’ হিসেবে পালন করেছেন রোহিঙ্গারা। রবিবার ক্যাম্পসহ সীমান্তের শূন্যরেখায় গোপনে এই দিনটি পালনের খবর পাওয়া গেছে। ব্যানার ফেস্টুন হাতে নিয়ে বিভিন্ন মাদ্রাসায় রোহিঙ্গারা বৃদ্ধ-শিশুরা অংশ নেন।

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশ (বিজিপি) চৌকিতে একটি হামলার ঘটনা ঘটে। সেই হামলার দায় স্বীকার করেছিল আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা)। ৯ অক্টোবরের ওই হামলার পর সে সময় মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর হামলার কারণে শতাধিক রোহিঙ্গা নিহত হয়েছিল। এর বাইরে ৩০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা উদ্বাস্তু হয়েছে এবং বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছিল ৫০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা।

পুলিশ ও রোহিঙ্গারা জানান, রবিবার সকালে উখিয়া ক্যাম্পসহ (নো ম্যানস ল্যান্ডে) সীমান্তের শূন্যরেখায় ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে দিনটি পালনের কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যানার-ফেস্টুনে ৯ অক্টোবরকে ‘হ্যাপি ডে’ উল্লেখ করা হয়েছে ও আরসার প্রধানের ছবি ছিল। এই নিয়ে ক্যাম্পজুড়ে আলোচনা শুরু হয়। সেই সূত্র ধরেই দিনটি পালনকারীদের খুঁজতে তৎপরতা শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

এ বিষয়ে ৮-এপিবিএনের সহকারী পুলিশ সুপার (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) মো. ফারুক আহমেদ বলেন, ‘কয়েকটি ক্যাম্পে গোপনে ৯ অক্টোবর পালনের খবর পেয়েছি। ছবি দেখে আমরা কয়েকজনকেও শনাক্ত করেছি। তাদের খুঁজছি। এছাড়া বাকিদের বিষয়ে তদন্ত চলছে।’

শূন্যরেখার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা দিল মোহাম্মদ বলেন, ‘আমার ক্যাম্পসহ উখিয়ায় ৯ অক্টোবর পালনের বিষয়টি জেনেছি। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।’

কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা নুর কামাল বলেন, ‘শূন্যরেখাসহ ক্যাম্পে ৯ অক্টোবর পালনের কিছু ছবি পাওয়া গেছে। মূলত অপরাধের সঙ্গে জড়িত কিছু রোহিঙ্গা এই ধরনের কার্যক্রম চালাচ্ছে। তাদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।’ বাংলা ট্রিবিউন

Related Articles