‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না’- এমপি জাফর

‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না’- এমপি জাফর

সম্পদের হিসাব দিতে সপরিবারে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত কক্সবাজার কার্যালয়ে এসেছিলেন কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে দুদকের সমন্বিত কক্সবাজার কার্যালয়ে আসেন তিনি। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী শাহেদা বেগম, ছেলে তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন ও মেয়ে তানিয়া আফরিন।


দুই ঘণ্টার পর এমপি জাফর আলম একা বের হয়ে দ্রুত উঠে গেলেন গাড়িতে। এসময় গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না। এটাই লিখেন আপনারা।’

পরে সাড়ে ৩ ঘণ্টা পর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বের হন তার স্ত্রী এবং দুই সন্তান। এসময় তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন বলেন, ‘সরকারি মেগা প্রকল্পে অনিয়ম দুর্নীতিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে আমার পিতা (এমপি জাফর) প্রতিবাদ করেছেন। যারা ইতোমধ্যে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদের কবলে পড়েছেন। এদের একটি চক্র আমাদের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ দিয়েছে। এর কোনো ভিত্তি নেই। শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না।’
দুদকের তথ্য মতে, এমপি জাফর আলমের স্ত্রী শাহেদা বেগম চকরিয়া পৌরসভার পালাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। সরকারি জমি, চিংড়ির ঘের, জলমহাল দখল, মাদক কারবার, চাঁদাবাজি এবং অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রির মাধ্যমে শাহেদা বেগম কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ ওঠে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৪ আগস্ট দুদকের কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে সংসদ সদস্য জাফর আলম, তার স্ত্রী শাহেদা বেগম, ছেলে তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন ও মেয়ে তানিয়া আফরিনকে ৪ সেপ্টেম্বর দুদকের কক্সবাজার কার্যালয়ে হাজির হয়ে সম্পদের হিসাব দিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু ওই দিন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন থাকায় এমপি জাফর দুদকে সময় চেয়ে আবেদন করেন। পরে ২০ সেপ্টেম্বর হাজির হওয়ার নতুন তারিখ নির্ধারণ করে সম্পদের হিসাব দিতে নোটিশ দেয়া হয়। মঙ্গলবার দুপুরে এমপি তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে দুদক কার্যালয়ে হাজির হন।

বিষয়টি নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজী হননি দুদকের কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে কথা বলার সময় আসেনি।’

Related Articles