নায়িকাদের ব্যবসায়ী স্বামী

বিনোদন ডেস্ক

রনি রিয়াদ রশীদকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন নুসরাত ফারিয়া। রনি আর্মি পরিবারের সন্তান। নুসরাত ফারিয়াও। রনির বাবা সাবেক সেনাপ্রধান বীরপ্রতীক এম হারুন-অর-রশীদ। রনি একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের পরামর্শক। পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ায় সরকারি চাকরি করছেন। এছাড়া পারিবারিক ব্যবসা আছে।ব্যবসায়ীক পরিচয়টাই এখন তার বড় পরিচয় জানালেন ফারিয়া।

নায়িকাদের ব্যবসায়ী বিয়ে করা এই প্রথম নয়। বলিউডে রেখা, শিল্পা শেঠী কিংবা অসীনরাও বিয়ে করেছেন ভারত বিখ্যাত ব্যবসায়ীদের। বলিউড নায়িকাদের কথা বাদ দিয়ে আমাদের শোবিজে অঙ্গনের দিকে তাকালেও দেখা যাবে ব্যবসায়ীদের প্রতি নায়িকাদের প্রেম কেমন। শোবিজ অঙ্গন রেখে বড় ব্যবসায়ী বিয়ে করেছেন বহু জনপ্রিয় নায়িকা। শাবানা বিয়ে করেছিলেন প্রযোজক ওয়াহিদ সাদিককে। সিনেমা প্রযোজনা করলেও তিনি স্বনামধন্য ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত ছিলেন সে সময়। এরপর যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাস জীবন শুরু করেন। সেখানেও নানা ব্যবসায় তিনি জড়িত।

ববিতার ছেলে অনিকের বয়স যখন মাত্র তিন বছর, তখন স্বামী ব্যবসায়ী ইফতেখারুল আলম মারা যান। একদিকে অভিনয়, অন্যদিকে সংসার-সন্তান সামলানো-সবই তিনি করেছেন। ইফতেখারুল আলম চট্টগ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ছিলেন।

তাদের পরবর্তী প্রজন্মের নায়িকারাও ব্যবসায়ীদের প্রতিই ঝুঁকেছে। কত জল ঘোলা করে শাবনুর বিয়ে করেছিলেন অনিক মাহামুদকে। বিয়ের পর শাবনুর তাকে ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিলেও, ডিভোর্সের পর তাকে বেকার বলে সম্বোধন করেন। পূর্ণিমার স্বামী আহমেদ ফাহাদ জামালও একজন ব্যবসায়ী। তার ব্যবসা মূলত চট্টগ্রাম কেন্দ্রীক। তবে কি ব্যবসা সেটা সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি।

মৌসুমীর স্বামী ওমর সানী নায়ক। তবে তিনি এখন অভিনয়ের চেয়ে ব্যবসাতেই বেশি মনোযোগি। ওমর সানীর কাপড় বিক্রেতা হওয়ার ঘটনাটা অনেকেরই জানা। অনেকেই হয়তো জানেন বেশ কয়েক বছর আগে ওমর সানী-মৌসুমী বসুন্ধরা সিটিতে ‘ফ্রি জোন’ নামে পোশাকের শো-রুম চালু করেন।

মাহিয়া মাহির স্বামী মাহমুদ পারভেজ অপুর পরিবার স্বাধীনতার আগ থেকেই বিত্তবান। তাঁর দাদা মৃত আব্দুল হামিদ সিলেট অঞ্চলের বিচারক ছিলেন। শুধু বিচারকই নন, দেশের রাজনৈতিক মহলেও তার ছিলো বেশ পরিচিতি। দেশের শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিবিদের তালিকায় ছিল আব্দুল হামিদের নাম। তিনি এক সময় গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

এছাড়াও ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখেছিলেন আব্দুল হামিদ। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠকও ছিলেন।আর সেই আব্দুল হামিদের ছেলে হলেন মাহমুদ পারভেজ অপু’র বাবা আব্দুল মান্নান। তিনি বাবার মতো এতোটা সুনাম অর্জন না করতে পারলেও ধরে রেখেছেন বাবার রেখে যাওয়া সম্পত্তির হাল। তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় একজন কয়লা আমদানিকারক।অপুও বাবার সঙ্গে এই ব্যবসায় জড়িত।

নাট্যাঙ্গনের জনপ্রিয় তারকা রুমানা রশীদ ঈশতার স্বামী আরিফ দৌলাও একজন ব্যবসায়ী। তিনি বাংলাদেশের স্বনামধন্য এসিআই গ্রুপের অন্যতম কর্ণধর।

কয়েকটি সিনেমায় অভিনয় করা শায়লা সাবির স্বামী সাব্বির আহমেদ একজন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী। তাদের একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে।

আপনার মন্তব্য দিন