কক্সবাজারের বাংলাবাজারে কথিত ইয়াবা লুটকারী দুই যুবক আটক

নিউজ কক্সবাজার রিপোর্ট।। 

কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা বাংলাবাজার স্টেশনে কথিত ইয়াবা লুটের ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজন দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। ২৮ জুলাই মঙ্গলবার ভোররাতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোছাইনের নেতৃত্বে পুলিশ দল দীর্ঘ ৮ ঘন্টা শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় দুইজনকে নিজনিজ বাড়ী থেকে আটক করা হয়। আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে পুলিশ।

জানা গেছে, সোমবার (২৭ জুলাই) সকাল ১১ টার দিকে ইয়াবার চালান লুটের ঘটনা নিয়ে ওই এলাকায় দিনভর তোলপাড় চলে। দুপুর থেকে ইয়াবা লুটের বিষয় নিয়ে বাংলাবাজার এলাকায় তোলপাড় চলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান টিপু সোলতান।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, বাংলাবাজার ও পিএমখালী এলাকা কেন্দ্রিক একটি ইয়াবা সিন্ডিকেট রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। ওই সিন্ডিকেটের দুই সদস্য পিএমখালী এলাকার করিম ও উখিয়া কোটবাজার এলাকার হেলাল সোমবার সকাল ১১ টার দিকে বাংলাবাজার স্টেশনে আসে।

এ সময় তাদের কাছে একটি পলিথিনে ইয়াবা ট্যাবলেটও ছিল। ইয়াবা ট্যাবলেটের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে বাংলাবাজার এলাকার শাহাজাহানের নেতৃত্বে একটি চক্র ওই দুইজনকে হামলা চালিয়ে ইয়াবাগুলো ছিনিয়ে নেন।

ইয়াবাগুলো ছিনিয়ে নেওয়ার পর করিম ও হেলালকে ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছেড়ে দেয় ইয়াবা ব্যবসায়ী দাবি করে, অভিযোগ চেয়ারম্যান টিপু সোলতান পরিবারের । এরপর কৌশলে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করা হয় হেলাল ও করিমকে।

এঘটনাটি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ার পর প্রশাসনের নজরে আসে।
সুত্রে জানাগেছে, মঙ্গলবার ভোর রাত ৩টার দিকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোছাইনের নেতৃত্বে কক্সবাজার সদর মডেল থানার পুলিশ দলসহ প্রায় ৫০ থেকে ৬০ জন পুলিশ সদস্য সদরের বাংলাবাজার এলাকায় অভিযান চালায়।

রাত ৩ টা থেকে সকাল ১১ টা পর্যন্ত প্রায় ৮ ঘন্টা অভিযান চালিয়ে নিজ নিজ বাড়ী থেকে খোরশেদুল হক ও মো. শাহাজানকে আটক করে। ইয়াবা লুটের ঘটনায় আটক শাহাজান পুলিশকে স্বীকারোক্তি দিয়েছে বলে জানা গেছে।

আটক খোরশেদুল হক সদরের বাংলাবাজার এলাকার খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক (বীরপ্রতীক) ছেলে ও জেলা শ্রমিকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কমিউনিটি পুলিশিং ঝিলংজা ইউনিয়ন সাংগঠনিক সম্পাদক। আটক শাহজাহানও একই এলাকার মোহাম্মদ হোসনের ছেলে। সে ইয়াবা ব্যবসায়ী ও আসক্ত এবং ডাকাতি মামলা সহ আরো মামলা আছে বলে জানিয়েছেন ঝিলংজা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সোলতান।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাহান কবির বলেন, আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ঘটনাটি নিবিড় তদন্ত করা হচ্ছে।

অভিযোগের ব্যাপারে খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক (বীরপ্রতীক) পরিবারের দাবী,আমার পরিবারের সাথে দীর্ঘ বছরের শত্রুতা রয়েছে ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান টিপু সুলতানের পরিবারের সাথে। যা বাংলাবাজার এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অবগত। আমার ও আমার পরিবারের মান ক্ষুন্ন করতে তারা সাংবাদিক ভাইদের ও প্রশাসনকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে।

আমি প্রশাসন ও সাংবাদিক ভাইদের অনুরোধ করছি, আপনারা সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করুন ও লিখুন, আমার কোন আপত্তি নাই।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার শহরের মাঝির ঘাট এলাকা থেকে এককোটি ইয়াবা লুটের ঘটনা ঘটেছিল।
এরপর পুলিশ ঘটনা নিয়ে তদন্ত করে লুট হওয়া দুই লাখ ইয়াবাও উদ্ধার করেছিল। আটক করেছিল বেশ কয়েকজন আসামীকে।

ওই ইয়াবা লুটের মূলহোতা টেকপাড়া এলাকার মিজান ২০ জুলাই পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহতও হয়। তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল ১০ হাজার ইয়াবা ও বন্দুক।

আপনার মন্তব্য দিন