চকরিয়ায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত-৩ : ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধার

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন।।

কক্সবাজারের চকরিয়ার বরইতলীর গর্জন বাগানের জঙ্গলে পুলিশের সাথে ঘন্টা ব্যাপী বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ৩ জন নিহত হয়েছে। পুলিশের দাবী নিহতরা ইয়াবাকারবারী। এসময় ওসি সহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩১ জুলাই) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে চকরিয়া উপজেলার বরইতলীর বানিয়ারছড়ার পাহাড়ী ঢালার চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহা সড়কের পশ্চিম পাশে গর্জন বাগানের জঙ্গলে এ ঘটনা ঘটেছে। ভোর সাড়ে ৩টার সময় বন্দুকযুদ্ধ শেষে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩ জনের গুলিবিদ্ধ লাশ, ৪৪ হাজার পিস ইয়াবা, ২টি বন্দুক ও ৭ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে। আহত পুলিশ সদস্যদের চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
চকরিয়ার হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির আইসি আমিনুল ইসলাম এ ঘটনা নিশ্চিত করেছেন।
পুলিশ সুত্রে জানা গেছে; বৃহস্পতিবার (৩১ জুলাই) রাত ১টার দিকে পুলিশ বানিয়ারছড়া এলাকা থেকে ইয়াবা সহ ১জন পুরুষ ও ১জন নারীকে আটক করেন। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারেন, বরইতলীর গর্জন বাগানের জঙ্গলে ইয়াবার একটি বড় চালান ভাগাভাগি হচ্ছে।

এ খবর নিশ্চিত হওয়ার পরপরই রাত ২টা ৩০ মিনিটের দিকে চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স নিয়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের বরইতলীর বানিয়ারছড়ার উত্তর পাশের পাহাড়ী ঢালায় গর্জন বাগান এলাকায় পৌঁছে। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইয়াবাকারবারীরা গুলি ছুড়ে। জবাবে এসময় পুলিশও পাল্টাগুলি ছুঁড়ে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৩ জন ইয়াবাকারবারীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে। তাদের কোন পরিচয় পাওয়া যায়নি বলে জানান পুলিশ।
তবে নিহতদের ১ জনের বয়স ৪৫ বছর, দুইজনের বয়স আনুমানিক ৩৫ বছর হবে বলে পুলিশের ধারণা।
পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৪৪ হাজার পিস ইয়াবা, ২টি বন্দুক ও ৭ রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে।
পুলিশ জানায়, বন্দুযুদ্ধের সময় পুলিশ প্রায় ৪৫ থেকে ৫০ রাউন্ড ও ইয়াবাকারবারীরা ৩০ থেকে ৩৫ রাউন্ড গুলিবিনিময় করে। পুলিশ আরো জানায়, এ ঘটনায় চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান, হারবাং পুলিশ ফাড়ির আইসি আমিনুল ইসলাম, পুলিশ কনস্টেবল সাজ্জাদ ও সবুজ আহত হয়। তাদেরকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
নিহত ৩জন ইয়াবাকারবারীর লাশ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে পুলিশ জানায়।

আপনার মন্তব্য দিন